আসুন শুকরগুযার বান্দা হই।

0

Our Times News

লোকজন আমাকে জিজ্ঞেস করে তুমি কেমন আছ?
উত্তরে বলি আলহামদুলিল্লাহ।
তারা তখন মনে করে আমি খুব ভাল আছি।
তারা জানেনা আমি সুখে দুঃখে ও স্বচ্ছল অস্বচ্ছল উভয় অবস্থায় আলহামদুলিল্লাহ বলি।
সুখে দুঃখে রবের প্রশংসা করতে পারা, আলহামদুলিল্লাহ বলতে পারা সৌভাগ্যের লক্ষণ।
কারণ এ মর্মে একটি হাদিস বর্ণিত হয়েছে।
হযরত ইবনে আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহুমা বর্ণনা করেন আল্লাহর নবী এরশাদ করেন জান্নাতে সর্বপ্রথম তাদেরকে আহবান করা হবে যারা সুখে দুঃখে ও স্বচ্ছলতায় – অস্বচ্ছলতায় রবের প্রশংসা করে।
মুসতাদরাকে হাকেম ১৮৯৩.
রব্বুল আলামীন কুরআনে পাকে ঘোষণা করেন,
যদি তোমরা (নিয়ামতের) শোকর আদায় করো আমি তোমাদেরকে (নিয়ামত) বাড়িয়ে দিবো। আর যদি না শোকরি করো তাহলে জেনে রাখো আমার আযাব অতি কঠিন।
সুরা ইবরাহীম – আয়াত নং ৭
অন্যে জায়গায় ঘোষণা করেন,
যে কৃতজ্ঞ হয় সে নিজের উপকারার্থেই কৃতজ্ঞ হয়।
সুরা লোকমান- আয়াত নং ১২
রব্বুল আলামিনের শুকরগুযার বান্দা হওয়ার উপায় হচ্ছে, অপরের কৃতজ্ঞতা স্বীকার করা। উপকারের কথা অকপটে স্বীকার করা। কখনো না শোকরি না করা। উপকারীর ক্ষতি না করা। কেননা অপরের শোকরিয়া যে আদায় করে না সে রব্বুল আলামিনের ও শোকর করে না। হাদিসে পাকে বর্ণিত হয়েছে,
আবূ সাঈদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি মানুষের শুকরিয়া করেনা সে আল্লাহরও শুকরিয়া করেনা।
জামে তিরমিজি হাদিস নং ১৯৬১,
আল্লাহ তায়ালা আমাদের সর্বাবস্থায় শুকরগুযার বান্দা হওয়ার তাওফিক দান করুন।
(লেখক:মুফতী আব্দুল্লাহ ইদরীস)

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে