অসুস্থ তরুণী কে করোনা সন্দেহে বাস থেকে ছুঁড়ে ফেলে হত্যা।

0

স্টাপ রিপোর্টার:

পুরো পৃথিবীব্যাপী দিন দিন বেড়েই চলেছে মরণব্যাধি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। সেই সঙ্গে দিন দিন বাড়ছে মানুষের নির্মম অমানবিকতা,যেই অমানবিকতা প্রানঘাতী করোনা ভাইরাসের চেয়েও অনেক অনেক ভয়ংকর। হারিয়ে যাচ্ছে মানুষের প্রতি মানুষের সামান্য টুকুন বিশ্বাস। ভারতের উত্তরপ্রদেশে একটি নির্মম হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে, মানুষ যে ক্রমেই হৃদয়হীন হয়ে উঠছে এই ঘটনা তার বহিঃপ্রকাশ, ১৯ বছরের এক তরুণীকে করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে তার মায়ের সামই চলন্ত বাস থেকে টেনে, হিঁচড়ে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছেন কিছু নির্দয় হৃদয়হীন বাসের যাত্রীরা। ভয়ঙ্কর এই নারকীয় ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের রাজ্য উত্তরপ্রদেশের মধ্যে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা গিয়েছে, আনশিকা যাদব নামের ১৯ বছরের এক কিশোরী ভারতীয় উত্তরপ্রদেশের শিকোহাবাদ থেকে মায়ের সাথে বাসে চড়ে দিল্লি যাচ্ছিলেন, হঠাৎ করে মেয়েটি গরমের কারণে বাসে খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন। মুহূর্তেই বাসের যাত্রীদের মধ্যে গুজব ছড়িয়ে পড়ে মেয়েটি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। বাসে থাকা সমস্ত যাত্রীরা মেয়েটির উপর প্রচণ্ড ক্ষেপে যান, পরে বাসের যাত্রীরা মেয়েটিকে বাস থেকে নেমে যাওয়ার জন্য অনেক জোরাজুরি করতে থাকেন।
এই ভয়ংকর পরিস্থিতিতে পড়ে ভয়ে মেয়েটি ও তার মা-আতঙ্কে কান্নায় ভেঙে পড়েন। মাঝ রাস্তায় কিভাবে কোথায় যাবেন তা বুঝতে না পেরে সবার কাছে বারবার আকুতি মিনতি করতে থাকেন অসহায় মা- ও মেয়ে। মেয়েটি মা বলছিলেন তার মেয়ে করোনায় আক্রান্ত রোগী নন, তাঁর মায়ের এই কথা বাসের কোন যাত্রীই সামান্য টুকুন ও বিশ্বাস করেন। ঠিক শেষ মুহূর্তে এমন এক নির্মম পরিস্থিতি দাঁড়ায়, যে, বাসের সকল যাত্রীরা করোনা আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে বাসের মধ্যে থাকা একটা নোংরা কম্বল জোর করেই ওই অসহায় অসুস্থ কিশোরীর গায়ে জড়িয়ে দেন, ঠিক কম্বল ধরেই তাকে সিট থেকে নামিয়ে বাসের হেলপাররা জোর করে টেনে হিঁচড়ে কম্বলসহ চলন্ত বাস থেকে রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলে দেয়।

পরে আগ্রা এক্সপ্রেসওয়ের ওপরে গুরুতর জখম ও রক্তে রঞ্জিত নিথর দেহ নিয়ে পড়ে থাকে দুর্ভাগা এই তরুণী। ঠিক অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই মেয়েটির মৃত্যু হয়।
এই নির্মম ঘটনায় মথুরা থানা পুলিশ প্রথমে কোনো অভিযোগ নিতে চায়নি বলে দাবি করেন নিহতের পরিবার। পরে তরুণীর ভাই বিপিন যাদব বলেছেন, আমার বোনকে নির্মম ভাবে খুন করা হয়েছে। এই ঘটনার খবর পাওয়া সাথে সাথেই উত্তরপ্রদেশ পুলিশের কাছে রিপোর্ট চান দিল্লির কমিশন ফর উইমেন।
পরে দিল্লির প্রধান কমিশনার স্বাতী মালিওয়াল তার নিজের ট্যুইটে আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, এমন জঘন্যতম ঘৃণ্য অপরাধের জন্য কেউই রেহাই পাবে না। এই নির্মম হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করার জন্য তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ প্রশাসন।

 

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে