আর্মেনীয় প্রধানমন্ত্রীর ছেলের পরে তার গিন্নীও যুদ্ধে যাচ্ছেন!

0

Our Times News

আজারবাইজান বলেছে, গতকাল (বুধবার) নাগোর্নো-কারাবাখের বার্দা জেলার একটি জনবহুল এলাকায় সহসা ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনী। এতে ২১ জন বেসামরিক আজেরি নিহত এবং অন্তত ৭০ জন আহত হয়েছে। আজ সকাল তক হামলা অব্যাহত ছিলো।

তবে আর্মেনিয়া এ হামলার কথা অস্বীকার করেছে।

এদিকে, আর্মেনিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র শুশান স্তেপানিয়ান বলেছেন: আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সাহায্যে আরেকটি আজারি ড্রোনকে আর্মেনিয়ার আকাশ-সীমায় ধ্বংস করা হয়েছে। গত ক-দিনে এ নিয়ে ৩টি ড্রোন ধ্বংস করা হলো।

তবে আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তাদের কোনো ড্রোন ধ্বংস হয়নি, বরং আজ (বৃহস্পতিবার) গুবাদলিতে আজারবাইজানি অবস্থানে আর্মেনিয়ার জঙ্গীবিমান উড়ছিলো। দুপুরের পর, ২টি সুখোই-২৫ ভূপাতিত করা হয়েছে।

ওদিকে, রাশিয়ার রিয়া নভোস্তি নিউজ এজেন্সির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নাগোর্নো-কারাবাখের সঙ্গে আর্মেনিয়া সীমান্তে রুশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী মোতায়েনের খবর নিশ্চিত করেছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান। তিনি বলেন: এটা বিশেষ কিছু নয়। আর্মেনিয়ার সীমান্তে তুরস্ক ও ইরানের সঙ্গে রাশিয়ার সীমান্তরক্ষী বাহিনী মোতায়েন হয়েছে। আর্মেনিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তে রুশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী রয়েছে।

এদিকে, তৃতীয় যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে নাগোর্নো-কারাবাখ নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মাঝে তুমুল যুদ্ধ চলছে। আজারি সেনাবাহিনীর হাতে একের পর এক অধিকৃত অঞ্চল, সামরিক সরঞ্জাম ও সেনা হারাচ্ছে, আর্মেনিয়াকে।

আজ (বৃহস্পতিবার) অস্বীকৃত নাগোর্নো-কারাবাখের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আজেরিদের সঙ্গে সংঘাতে তাদের আরো ৫১ জন যোদ্ধা নিহত হয়েছে। এ নিয়ে ২৭শে সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে যুদ্ধে এ পর্যন্ত ১১১৯ যোদ্ধা নিহত হলো। এছাড়া, আজ ৩০ আর্মেনীয় সেনার লাশ আজারবাইজান ফেরত দিয়েছে এবং ইয়েরেভেন সেসব গ্রহণ করেছে।

দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে ইয়েরেভেনের সম্মান বাঁচাতে নাগোর্নো-কারাবাখে যুদ্ধে যোগ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী অ্যানা হাকোবিয়ান (৪২)। মঙ্গলবার তিনি ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে জানান, আপাতত একটি সেনাঘাঁটিতে ১২ জন নারী সৈনিকের সঙ্গে প্রশিক্ষণ নিচ্ছি আমি। ক-দিনের ভেতরেই সীমান্তে সম্মুখ লড়াইয়ের জন্যে রওনা দেবো আমরা। শত্রুপক্ষের হাতে আমাদের সম্মান ও মাতৃভূমি কোনোটাই তুলে দেবো না। দেশের মানুষের পক্ষে এটিই এগিয়ে আসার সময়। বিশ্বকে বুঝিয়ে দেয়ার সময় যে, আর্মেনিয়ার পুরুষরা দেশ রক্ষা করতে জানেন। স্ত্রী, সন্তান, পরিবারকে রক্ষা করতে জানেন।

আগস্ট থেকে এটি হবে হাকোবিয়ানের দ্বিতীয় যুদ্ধ প্রশিক্ষণ। সেখানে তিনি ও নারীদের একটি দল কারাবাখে যুদ্ধের প্রস্তুতির জন্যে এক সপ্তাহ শারীরিক ও অস্ত্রচালনার প্রশিক্ষণ নেবেন।

শুধু প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী হিসেবেই নয়, আনার পরিচিতি ‘হাইকাকান ঝামানাক’ নামে একটি সংবাদপত্রের প্রধান সম্পাদিকা হিসেবেও। একই সঙ্গে তিনি বিভিন্ন সমাজসেবামূলক প্রতিষ্ঠান চালান। আর্মেনিয়ার ‘উইমেন ফর দ্য পিস’ আন্দোলনের সঙ্গেও যুক্ত তিনি।

আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী পাশিনিয়ান বলেছেন, পরিস্থিতি খুবই মারাত্মক এবং আর্মেনিয়ান নাগরিকদের অস্ত্র হাতে নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রীর ছেলে অ্যাশট পাশিনিয়ান (২০) ইতিমধ্যেই কারাবাখে আজারবাইজানের বিপক্ষে যুদ্ধে যোগ দিয়েছে।

সূত্র: আল-জাজিরা, রয়টার্স, এপি, ইয়েনি শাফাক, ডেকান হেরাল্ড, এএফপি ও আনন্দবাজার পত্রিকা।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে