ইইউ-তে ঢুকতে সব শর্তই মানতে রাজি তুরস্ক যদি..

0

রিপোর্টার: সাইফুল ইসলাম রুবায়েত।

গতকাল (মঙ্গলবার) তুরস্ক ও সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভাসগ্লু বলেছেন: ইউরোপের সদস্যপদ পেতে যে কোনো শর্ত পূরণ করতে প্রস্তুত তুরস্ক যদি জোট সততার সঙ্গে আলোচনা করতে চায়। ইউরোপের উচিত – বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া।

সংবাদ সম্মেলনে দু পররাষ্ট্রমন্ত্রী কারাবাগ, সিরিয়া ও দু দেশের দ্বিপাক্ষীয় সম্পকসহ আঞ্চলিক বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা করেন। কাভাসগ্লু সন্ত্রাস দমনে সুইডেনের সমর্থন ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

তুরস্ক ১৯৯৯ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ পেতে প্রার্থিতা ঘোষণা করে। ২০০৫ সাল থেকে এ নিয়ে আলোচনা শুরু হলেও এখনো এ ক্ষেত্রে অনেক বাধা রয়ে গেছে। এগুলোর মাঝে সাইপ্রাস ও গ্রীসের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধ অন্তর্গত। এছাড়া, মুসলিম দেশ হওয়ায় – আরো বড় কথা, ইসলামপ্রিয় সরকার হওয়ার কারণেও তুরস্ককে ইউরোপীয় ইউনিয়নে নিতে চায় না এ জোটের ইসলাম-ভীতিতে আক্রান্ত কিছু সদস্য।

উল্লেখ্য, তুরস্কের ৩% (তাতে দেশটির ১০% জনগণের বাস), আজারবাইজানের প্রায় ৮.৫% এবং আয়তনে সবচেয়ে বড় মুসলিম দেশ কাজাখস্তানের প্রায় ১০% এলাকা ইউরোপে পড়েছে। আর ৩টি মুসলিম দেশ পুরোপুরি ইউরোপীয় ও বলকান; যথা- বসনিয়া-হার্জিগোভিনা, আলবেনিয়া ও কসোভো। কিন্তু শুধুমাত্র মুসলিম দেশ হওয়ায় এগুলোর কোনোটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য নয়; যদিও তুরস্ক ছাড়া বাকি দেশগুলোর সরকার সেকুলার। তেমনি, তুরস্ক ও আলবেনিয়া ছাড়া বাকি দেশগুলো ন্যাটোর সদস্যও নয়। কাজেই, ইউরোপের অমুসলিমরা নিজেদেরকে যতোই সেকুলার বা ধর্মনিরপেক্ষ দাবি করুক না কেন – আদতে এরা ইসলাম ও মুসলমানদের চরম শত্রু। সূত্র: ইয়েনি শাফাক ও অন্যান্য।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে