ইসরাইলের সঙ্গে আমিরাতের ভিসামুক্ত সফর চুক্তি।

0

রিপোর্টার: সাইফুল ইসলাম।

আমিরাতের হোটেলে ইহুদিদের খাবারের ব্যবস্থা করার নির্দেশ দিয়েছে আমিরাত সরকার।

দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরো জোরদারে প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিকভাবে আমিরাতি একটি সরকারি প্রতিনিধি দল ইসরাইল সফর করছে। গতকাল (মঙ্গলবার) তারা এতিহাদ এয়ারওয়েজের একটি বিমানে আবুধাবী থেকে ইসরাইলের বেন-গুরিয়ান বিমানবন্দরে অবতরণ করলে, মাস্ক পরা নেতানিয়াহু তাদের স্বাগত জানান। তখন তিনি বলেন: আরব আমিরাতের কর্মকর্তাদের এ সফর শান্তির জন্যে একটি স্বর্ণোজ্জ্বল দিন। আমরা আজ ইতিহাস রচনা করছি – যে পথ ধরে বহু প্রজন্ম এগিয়ে যাবে।

সফলে প্রথম আরব দেশ হিসেবে অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সঙ্গে ভিসামুক্ত ভ্রমণ চুক্তি করে সংযুক্ত আরব আমিরাত। ফলে, এখন থেকে আমিরাতের নাগরিকরা ভিসা ছাড়াই ইসরাইল সফর করতে পারবেন।

এদিকে, ইসরাইলি পররাষ্ট্রমন্ত্রী গাবি আশকেনাজি আমিরাতের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তখন ইসরাইলে নিজেদের দূতাবাস খুলতে সরকারীভাবে অনুরোধ জানায় আমিরাত। আমিরাতি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উপদেষ্টা ওমর সাইফ ঘোবাশ – আবদুল্লাহ বিন জায়েদ আন-নাহিয়ানের তরফ থেকে ইসরাইলি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আশকেনাজির হাতে দূতাবাস খোলার জন্যে চিঠি হস্তান্তর করেন। চিঠিতে দু দেশের পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে আশকেনাজিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন নাহিয়ান। তিনি আশা করছেন – ইসরাইলও অতি দ্রুত আমিরাতে তার দূতাবাস খুলবে।

ওদিকে, আবুধাবীর সব হোটেলের প্রতি ইহুদিদের খাবারের ব্যবস্থা রাখার সরকারি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। নির্দেশনায় ইসরাইলি পর্যটকদের সাদরে গ্রহণের প্রস্তুতির জন্যে ইহুদিদের খাদ্যাভাসের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ খাবার রাখতে বলা হয়েছে। নিদের্শনায় বলা হয় – সব হোটেলকে তাদের পরিষেবা তথা রুম সার্ভিস মেন্যু এবং সব খাবার ও পানীয়ের দোকানগুলোকে ইহুদি ধর্মে বৈধ – এমন বিকল্প খাবার অন্তর্ভুক্তির পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

চলতি বছরের ১৩ই আগস্ট ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ঘোষণা দেয় আমিরাত। দু দেশের মাঝে টেলিফোন সংযোগ ও নিয়মিত বিমান চলাচল চালুর ঘোষণা দেয়া হয়।

সূত্র: ফ্লাইট রাইডার২৪, ইয়েনি শাফাক, টাইমস অব ইসরাইল, টিআরটি ওয়ার্ল্ড ও খালিজ টাইমস।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে