উইঘুর মুসলিম শিশুদের জোর করে এতিমখানায় পাঠাচ্ছে জালিম চিনা সরকার!

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে জানা গেছে, উইঘুর মুসলিম পরিবারগুলোকে আলাদা করছে চীনা নাস্তিক ও জালেম প্রশাসন এবং তাদের সন্তানদের সরকার নিয়ন্ত্রিত এতিমখানায় পাঠাচ্ছে।

সেখান থেকে পালিয়ে বিদেশে আশ্রয় নেয়া কয়েকজন মাজলুম মানুষের বরাতে তৈরী প্রতিবেদনে বিবিসি জানিয়েছে, ১০ লাখের বেশি সংখ্যালঘু উইঘুরকে বন্দী করে রেখেছে চীন – যাদের সিংহভাগই মুসলমান। সেখানে তাদেরকে দিয়ে জোর করে শ্রম খাটানো, নারীদেরকে যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটছে। হুমকির মুখে ঐ নারীরা তাদের সন্তানদের নিজ দেশে দাদা-দাদীর কাছে রেখে এসেছেন। কিন্তু ঐ শিশুগুলোকে জোর করে ধরে নিয়ে এতিমখানায় পাঠাচ্ছে চীনা কমিউনিস্ট কর্তৃপক্ষ। এদিকে, শিশুদের এতিমখানা থেকে মুক্ত করে দিতে চীন সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। অবশ্য বেইজিংয়ের তরফ থেকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। পাশাপাশি এটাও দাবি করা হয়েছে যে, ক্যাম্পগুলোতে তাদের সন্ত্রাসবিরোধী (আসলে, ইসলামী জিহাদবিরোধী) শিক্ষা দেয়া হয়।

অ্যামনেস্টি জানিয়েছে, মিহরিবান কাদের ও আবলিকিম মেমতিনিন নামের উইঘুর দু নারী পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়ে ২০১৬ সালে পালিয়ে ইতালিতে আশ্রয় নেন। তাদের চার সন্তানকে দাদা-দাদীর কাছে রেখে যান। কিন্তু দাদীকে ক্যাম্পে ধরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং দাদাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। এ অবস্থায় অন্য আত্বীয়রা ঐ সন্তানদের দেখভালের দায়িত্ব নেয়নি। ২০১৯ সালের নভেম্বরে এ দু নারী ইতালিতে বৈধভাবে থাকার অনুমতি পান। একই সাথে সন্তানদেরও দেশটিতে নিয়ে আসার জন্যে বলে কর্তৃপক্ষ। কিন্তু শিশুদের আটকে রেখেছে চীনা পুলিশ এবং সরকার নিয়ন্ত্রিত এতিমখানায় পাঠিয়ে দিয়েছে। বর্তমানে তাদের সন্তানরা চীনা একনায়ক সরকারের হাতে বন্দী। জীবিতকালে তাদের আর দেখতে পাবেন কিনা, তা নিয়ে সন্দিহান মিহরিবান কাদের। সূত্র: বিবিসি।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে