কাতার কখনোই ইসরাইলের সাথে কোনো রকম কূটনৈতিক বা বাণিজ্যিক সম্পর্ক গড়বে না: কাতার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
শুক্রবার (২৮ মে) দোহায় কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুহম্মদ বিন আব্দুর রহমান আলে ছানী বলেছেন: যুদ্ধবিরতিতেও আল-আকসা মসজিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলের উস্কানিমূলক তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। ইসরাইল ফিলিস্তিনীদের সাথে শান্তি প্রতিষ্ঠায় আলোচনায় বসতে চায় – অন্তত এমন কোনো আভাস এখনো পাওয়া যায়নি। যতোদিন সকল ফিলিস্তিনীকে সন্তুষ্ট করে – এমন কোনো পদক্ষেপ নিতে তেল আবিব ব্যর্থ হবে, ততোদিন ফিলিস্তিন প্রসঙ্গে কাতারের নীতিতে পরিবর্তন আসবে না। কাতার কোনোদিন ইসরাইলের সাথে কোনো রকম কূটনৈতিক বা বাণিজ্যিক সম্পর্ক গড়বে না। ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যকার সংকট সমাধানেও মধ্যস্থতা করতে রাজি দোহা। কাতার একটি সমঝোতায় পৌঁছাতে ওয়াশিংটন ও তেহরানকে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে, গেল বুধবার গাজায় এক সংবাদ সম্মেলনে হামাসের শীর্ষস্থানীয় নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ার বলেছেন: আমরা গাজা থেকে ইসরাইল অভিমুখে মিনিটে ২০০ কিঃমিঃ পাল্লার কয়েকশ’ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের সক্ষমতা রাখি। সাম্প্রতিক যুদ্ধে গাজার প্রতিরোধ আন্দোলন সংগঠনগুলোর সামান্যই ক্ষতি হয়েছে। যুদ্ধের শেষের দিকে ইসরাইলি আগ্রাসন কার্যকরভাবে বন্ধ করে দিতে হামাসের সামরিক শাখা ইজ্জাদ্দিন আল-কাসসাম ব্রিগেডস এক সাথে ৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের প্রস্তুতি নিচ্ছিলো। কিন্তু যুদ্ধবিরতি হওয়ায় সে পরিকল্পনা বাতিল করা হয়। গাজাভিত্তিক প্রতিরোধ আন্দোলনগুলোর অবস্থানে, বিশেষ করে হামাসের সমরাস্ত্র ভাণ্ডারে হামলা চালাতে ইসরাইল ব্যর্থ হয়েছে। গাজায় আমাদের নির্মিত ৫০০ কিঃমিটারেরও বেশি লম্বা টানেল রয়েছে এবং ইসরাইল সর্বোচ্চ মাত্র ৫% টানেলের ক্ষতি করতে পেরেছে। ফিলিস্তিনী জাতি কখনো ইসরাইলবিরোধী প্রতিরোধ আন্দোলন বন্ধ করবে না! গোটা মধ্যপ্রাচ্যের চিত্র পাল্টে যাবে এবং ইহুদিবাদী শত্রু আল-আকসা ও আল-কুদসে আমাদের নাগরিকদের বিজয় দেখতে পাবে। আল-আকসা মসজিদ রক্ষায় এ মুহূর্তে অন্তত ১০ হাজার মানুষ জীবন দিতে প্রস্তুত রয়েছে। ফিলিস্তিন প্রতিরোধ যোদ্ধাদের সার্বিক সহযোগিতা করায় ইরানকে ধন্যবাদ জানাই।

সেদিন টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রাচারিত একটি টিভি অনুষ্ঠানে সিনওয়ার বক্তব্য রাখেন। তাতে ইসরাইলি যুদ্ধমন্ত্রী বেনি গান্তেজের সাম্প্রতিক হুমকি – “ইয়াহিয়া সিনওয়ারের পাশাপাশি হামাসের সামরিক শাখা ইজ্জাদ্দিন কাসসাম ব্রিগেডসের কমান্ডার মুহম্মদ দেইফকে হত্যা করতে চায় তেলআবিব” সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় যে, আপনি এ হুমকিতে বিচলিত কিনা? জবাবে সিনওয়ার চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন: হার্টঅ্যাটাকে বা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু আমার কাম্য নয়, বরং ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাযুদ্ধে আমি ইসরাইলি বিমান হামলায় শহীদ হতে চাই। (সংবাদ সম্মেলন শেষে) আমি এখন থেকে বেনি গান্তেজকে ৬০ মিনিটের সময় দিচ্ছি। আমি এখান থেকে গাজার রাজপথ ধরে পায়ে হেঁটে নিজের বাসভবনে যাচ্ছি। পারলে যেনো তারা আমাকে এ সময়ের মাঝে হত্যা করে!

পরে সিনওয়ারের বাসভবনে হেঁটে যাওয়ার ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, তিনি নিজের প্রতিশ্রুতি বজায় রেখে পায়ে হেঁটে বাসায় গেছেন!

এদিকে, হঠাৎ করেই মঙ্গলবার সৌদী আরবের আকাশপথ ইসরাইলি বিমানের জন্যে নিষিদ্ধ করা হয়েছে! কেন, তা পরিষ্কার করে জানায়নি দেশটি। এর আগে গত বছর সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে ইসরাইল। এর পরে নভেম্বরে আকাশ ব্যবহারে ইসরাইলকে অনুমতি দেয় হয় সউদী আরব। সউদী আকাশপথ ব্যবহার করতে না দেয়ায় তেল আবিবের বেন গুরিয়ন বিমানবন্দর থেকে আমিরাতের উদ্দেশে উড্ডয়নের জন্যে অপেক্ষমান ফ্লাইট বাতিল করা হয়।

ইসরাইলি আর্মি রেডিও জানিয়েছে, এ কারণে যাত্রীদের ১০ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছে। ইসরাইল ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাঝে ফ্লাইট চলাচলে সউদী আকাশ একটি গুরুত্বপূর্ণ রুট। সউদী আরবের বদলে অন্য কোনো রুট বেছে নেয়া হলে, ইসরাইল থেকে তিন ঘণ্টার বদলে দুবাই পৌঁছাতে আট ঘণ্টার বেশি সময় লাগে! ফলে, আমিরাত ও ইসরাইলের মাঝে ফ্লাইট চলাচলে খরচ বেড়ে যাবে। সূত্র: পার্সটুডে, আল-জাজিরা, তাসনিম নিউজ ও আনাদোলু।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে