জার্মানির মসজিদে পুলিশি তল্লাশীর নিন্দা এরদোয়ানের!

0

Our Times News

মুসলিম নির্যাতনের বিরুদ্ধে বরাবরই সোচ্চার ইসলামপ্রেমিক তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান।

এবারে জার্মানির বার্লিনের একটি মসজিদে পুলিশি তল্লাশির নিন্দা জানিয়ে শুক্রবার তুর্কি প্রেসিডেন্ট একটি টুইটে বলেছেন: বার্লিনের মেভলানা মসজিদে বুধবার ফজরের নামাজ আদায়ের সময় সেখানে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই আমি। বর্ণবাদ ও ইসলাম বিরোধী নীতির দ্বারা এ অভিযান পরিচালিত হওয়াটা স্পষ্ট। এটা ইউরোপকে মধ্যযুগের অন্ধকারের কাছাকাছি নিয়ে গেছে। সেখানে ধর্মবিশ্বাসের স্বাধীনতাকে পুরোপুরি অবজ্ঞা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, জার্মানির বার্লিনে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত ভর্তুকি নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে বিভিন্ন স্থানে তদন্ত করছে বার্লিন কর্তৃপক্ষ। এর অংশ হিসেবে বুধবার জার্মান পুলিশ মেভলানা মসজিদ ও বেশ কিছু স্থাপনায় অভিযান চালায়। ভর্তুকি নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ সেদিনই প্রত্যাখ্যান করেছে ঐ মসজিদ কর্তৃপক্ষ এবং তারা মসজিদের ভিতরে পুলিশি তল্লাশির সমালোচনা করেছে। সেদিন মুখোশ ও পায়ে বুট পরা প্রায় ১৫০ জন পুলিশ ফজরের নামাজের সময় কার্পেট বিছানো ঐ মসজিদের ভিতরে সহসা প্রবেশ করে! তারা সেখান থেকে ৭ হাজার ইউরো নগদ অর্থ, ডাটা সংরক্ষক বিভিন্ন ডিভাইস, কম্পিউটার ও ফাইল উদ্ধার করে। বুধবার টুইটারে এ তথ্য দিয়েছেন বার্লিনের পাবলিক প্রসিকিউটর। রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, তিনজন সন্দেহভাজনের সন্ধানে ঐ তল্লাশি চালানো হয়েছে। অভিযোগ আছে ঐ তিনজন ব্যক্তি অন্যায্য উপায়ে করোনাভাইরাস বিষয়ে তাৎক্ষণিক সহায়তার জন্যে আবেদন করেছিলেন।

তবে টুইটারে পুলিশের এমন অভিযানের সমালোচনা করেছেন জার্মান সাংবাদিক ফাবিয়ান গোল্ডম্যান। তিনি বলেছেন: কামএক্স-এর ৫৫০০ কোটি ইউরো আয়কর ফাঁকির ঘটনা তল্লাশিতে মাত্র ১৫ জন পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিলো। অন্যদিকে, ঐ মসজিদে মাত্র ৭ হাজার ইউরো উদ্ধারের জন্যে তার চেয়ে ১০ গুণ বেশি পুলিশ মোতায়েন করতে হয়েছে! সূত্র: ডেইলি সাবাহ ও হুরিয়াত ডেইলি নিউজ।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে