নাইজেরিয়ায় অপহৃত ২৭৯ শিক্ষার্থীর সবাই মুক্ত

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
২৬.শে ফেব্রুয়ারি নাইজেরিয়ার উত্তরাঞ্চলের জামফারা রাজ্যের একটি সরকারি বালিকা বিজ্ঞান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অপহৃত ২৭৯ জন ছাত্রীর সবাইকে মুক্তি দেয়া হয়েছে।

গতকাল (মঙ্গলবার) স্থানীয় গভর্নর ডঃ বেলো মাতাওয়ালে বলেছেন: আমি আনন্দের সঙ্গে ঘোষণা করছি যে, সব ছাত্রী এখন মুক্ত। তারা সবাই একটি মিনিবাসে সরকারি ভবনে এসে পৌঁছেছে। সবাই ভালো আছে। শুক্রবার থেকে বন্দীদশায় থাকা আমাদের এসব শিশুকে আজই উদ্ধার করেছি। আমরা শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের আহ্বান জানিয়েছিলাম – যার ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেলো। অপহৃতদের উদ্ধারে কোনো মুক্তিপণ দেয়া হয়নি। তবে, আমরা অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়ার আশ্বাস দিয়েছি।

এর আগে কর্তৃপক্ষ বলেছিলেন যে, প্রত্যন্ত জাঙ্গিবী গ্রামের একটি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় থেকে শুক্রবার শ’ শ’ বন্দুকধারী এসে ৩১৭ জন শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে বনে নিয়ে যায়। কিন্তু স্থানীয় গভর্নর জানান, অপহৃত ছাত্রীর সংখ্যা ২৭৯ জন।

সরকারি কর্মকর্তারা অপহরণকারীদের সাথে আলোচনা করে এসব ছাত্রীর মুক্তির ব্যবস্থা করেন। তবে কারা বা কোন গোষ্ঠী এটা করেছিলো, তা তেমন জানানো হয়নি। নাইজেরিয়ার ঐ অঞ্চলের একাধিক সশস্ত্র দল প্রায়ই মুক্তিপণের জন্যে স্কুল-ছাত্রীদের আটক করে। ১৭ই ফেব্রুয়ারি দেশটির নাইজার রাজ্যের কাগারা জেলার একটি স্কুল থেকে ২৭ জন শিক্ষার্থী, ৩ জন কর্মচারী ও তাদের পরিবারের ১২ সদস্যকে অপহরণ করে বন্ধুকধারীরা। তখন এক শিক্ষার্থী নিহতও হয়। ২৭শে ফেব্রুয়ারি অপহৃত ২৭ জন শিক্ষার্থীকে ছেড়ে দেয় অপহরণকারীরা।

উল্লেখ্য, গত তিন মাসেরও কম সময়ের মাঝে নাইজেরিয়ায় গণহারে শিক্ষার্থীর অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। ফলে, সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ তীব্র হয়ে উঠছে।

এদিকে, সোমবার (১লা মার্চ) থেকে নাইজেরিয়ায় স্কুলগুলোতে হিজাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে সরকার। সম্প্রতি কাভারা রাজ্যের রাজধানী ইলুরিনে মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব পরা নিয়ে বিতর্ক হয়।

রাজ্য সরকারের সচিব অধ্যাপক মাম্মা সাবা জিরাইল বলেন: বিষয়গুলো স্পষ্ট করতে এবং ঐকমত্যে পৌঁছতে মুসলিম ও খৃষ্টান উভয় সম্প্রদায়ের নেতাদের সাথে বৈঠকের পর, গভর্নর আব্দুর রহমান আবব্দুর রাজ্জাক এ অনুমোদন দিয়েছেন। স্কুলগুলোতে ধর্মীয় স্বাধীনতার ওপর গুরুত্বারোপ করে সব ধর্মকে স্বাধীনতা ভোগ করে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাসের জন্যে বলা হচ্ছে। উভয় ধর্মকে (খৃষ্টান ও ইসলাম), বিশেষত নেতা, বিশেষজ্ঞ ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বকে তাদের কর্ম ও বক্তব্যের দায়বদ্ধতার সাথে সাথে একত্রে শান্তিপূর্ণভাবে বাস করতে আহ্বান জানানো হলো।

ফলে, এখন থেকে ঐ রাজ্যের শিক্ষার্থীরা হিজাব পরে ক্লাসে উপস্থিত হতে পারবেন।

উল্লেখ্য, মুসলিম (৭৭%) অধ্যুষিত কাভারা রাজ্যটি দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় বেনিনের সীমান্তে অবস্থিত। এটির ইসলামী অধিকার সংরক্ষক সংগঠন ঘোষণা করেছিলো যে, মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব ব্যবহার নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব সাংবিধানিক পদক্ষেপ নেয়া হবে। সূত্র: এএফপি, রয়টার্স, দ্য গার্ডিয়ান, আল-জাজিরা ও আফ্রিকা প্রেস।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে