ভারতে ঋতুবতী যে কোনো বয়সের মুসলমান মেয়ের স্বেচ্ছায় বিয়ের অনুমতি।

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
ভারতের পাঞ্জাবের এক মুসলিম দম্পতির আবেদনের ভিত্তিতে বুধবার পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টে বিচারপতি অলকা সরিন রায় দিয়েছেন যে,১৮ বছরের কম বয়সিনী হলেও হায়েজ শুরু হলেই স্বেচ্ছায় বিয়ে করতে পারবে মুসলমান মেয়েরা। মুসলিম পার্সোনাস’ল মেনেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

মুসলমান মেয়েদের বিয়ে নিয়ে ঐ রায়দানকালে অগ্নি-উপাসক স্যার দীনশাহ ফারদুনজি মোল্লার ‘প্রিন্সিপল অব মোহামেডান ল’ নামে বইয়ের ১৯৫ ধারার বরাত দেন বিচারপতি। সে মোতাবেক, বিচারপতির পর্যবে-রজঃস্বলা (ঋতুবতী) হলেই নিজের পছন্দ মতো ব্যক্তিকে বিয়ের যোগ্যা সব মুসলমান মেয়ে। বইটিদে বয়ঃসন্ধির বয়স কী হবে, তা নিয়েও বিশদে বলা হয়েছে। সে মতে, নির্দিষ্ট প্রমাণাভাবে ধরে নেয়া যেতে পারে যে, সাধারণত ১৫ বছরেই বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছায় ছেলেমেয়েরা, অর্থাৎ সাধারণত ঐ বয়সেই রজঃস্বলা হয় মেয়েরা। মোল্লার বইয়ের ব্যাখ্যা মোতাবেক, ‘রজঃস্বলা হয়েছে – এমন সুস্থ মস্তিষ্কের প্রত্যেক মুসলমান মেয়ে স্বেচ্ছায় বিয়ে করতে পারবে।

ভারতরে পাঞ্জাবের বাসিন্দা ঐ দম্পতি নিজেদের আবেদনে হাইকোর্টে জানিয়েছেন, ২১শে জানুয়ারি মুসলিম আইন মোতাবেক, তাদের বিয়ে হলেও তাতে মত ছিলো না আত্মীয়স্বজনদের। ৩৬ বছরের ঐ ব্যক্তি এবং তার ১৭ বছরের স্ত্রী নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। নিজেদের সুরক্ষার আবেদন নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার পাশাপাশি মোহালির এএসপি-র কাছেও গোটা বিষয়টি জানান তারা।

তাদের দাবি, ছেলেমেয়ের বয়স ১৫ এবং রজঃস্বলা হলেই স্বেচ্ছার বিয়েতে বাধা দিতে পারেন না অভিভাবকেরা। আবেদকদের পক্ষে রায় দিয়ে আদালত জানিয়েছে, এক্ষেত্রে প্রথম আবেদকের বয়স ৩৬’র বেশি এবং দ্বিতীয়া আবেদকের বয়স ১৭’র বেশি হওয়ায় মুসলিম পার্সোনাল ল’ মোতাবেক, তাদের স্বেচ্ছায় বিয়েতে বাধা নেই।

উল্লেখ্য, ইমাম আবু হানীফা, আবু ইউসুফ ও মুহম্মদসহ হানাফী মাযহাবের প্রায় সকল ইমামও (কুদ্দিসা আসরারুহুমুল আজীজ) উল্লিখিত বিষয়ে একমত। সূত্র: জি নিউজ ও অন্যান্য।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে