রোহিঙ্গাদের পুড়ে যাওয়া হাসপাতাল পুনর্নির্মাণ করছে তুরস্ক।

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
২২শে মার্চ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের কয়েক হাজার অস্থায়ী ঘরের সাথে ওখানকার সবচেয়ে বড় ও তুর্কি হাসপাতালটিও পুড়ে ছাই হয়ে যায়। হাসপাতালটি পুনর্নির্মাণে তুর্কি একটি সামরিক কার্গো বিমান (এ-৪০০এম) গতকাল আঙ্কারার এতিমেসগুত সামরিক বিমানবন্দর থেকে রওনা দিয়ে গতকাল (শুক্রবার) সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে হজরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেছে। আরেকটি বিমানে করে ২২ চিকিৎসকও আসছেন তুরস্ক থেকে।

হজরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার ফরহাদ হোসেন খান জানান, রোহিঙ্গাদের জন্যে ১৩ জন স্বেচ্ছাসেবী, ২০ টন ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী নিয়ে তুরস্ক বিমানবাহিনীর একটি উড়োজাহাজ এসেছে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের নির্দেশে দেশটির জরুরি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এএফএডি), স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও নগরায়ণ মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে এসব মেডিক্যাল সামগ্রী ও স্বেচ্ছাসেবী দল বাংলাদেশে এসেছেন। তারাঁ রোহিঙ্গাদের জন্রে হাসপাতাল পুর্ননির্মাণের কাজ তদারকি করবেন। ২৭শে মার্চ তুরস্ক বিমানবাহিনীর সি ১৩০ প্লেনে রোহিঙ্গাদের জন্য ২০ টন তাঁবু পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর ভয়াবহ নির্যাতনে সেখান থেকে সাড়ে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নেন। তাদের নানাভাবে সহায়তা করে আসছে তুরস্ক। সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি ও অন্যান্য।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে