সাইপ্রাসের লক্ষ্য হওয়া উচিত দুটি আলাদা রাষ্ট্র: এরদোয়ান।

0

Our Times News

গেল রবিবার উত্তর সাইপ্রাসের ৩৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানী নিকোশিয়ায় অনুষ্ঠিত এক সভায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেব এরদোয়ান বলেছেন: বিভক্ত এ দ্বীপ দেশটির লক্ষ্য হওয়া উচিত দুটি আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা নিয়ে আলোচনা করা। সাইপ্রাসে দু ধরনের মানুষ আর দুটি আলাদা রাষ্ট্র। ফলে, দুটি আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাকে ভিত্তি করে একটি সমাধানে পৌঁছতে অবশ্যই আলোচনায় বসা উচিত। এক ভাগ হবে গ্রীকপ্রধান দেশ; অন্যটি তুর্কিপ্রধান দেশ। তুরস্ক ও উত্তর সাইপ্রাস (টিআরএনসি) পূর্ব ভূমধ্যসাগরে হাইড্রোকার্বন সংস্থান সম্পর্কে আর কোনো ‘কূটনৈতিক খেলা’ সহ্য করবে না।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের এ প্রস্তাবের পর, সাইপ্রাস জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি তুরস্কের কোনো শ্রদ্ধা নেই। ইউরোপীয় নীতি ও মূল্যবোধও তারা মানে না।

উল্লেখ্য, ১৯৭৪ সালে গ্রীসের সামরিক শাসকরা সাইপ্রাসে অভ্যুত্থান ঘটান। এর জবাবে উত্তর সাইপ্রাসে অভিযান চালায় তুরস্ক। জাতিসংঘ এটিকে বেআইনি আখ্যা দিয়েছে। গ্রীস জানায়, তুরস্কের উদ্দেশ্য পুরো সাইপ্রাস দখল করে নেয়া।

১৯৮৩ সালের ১৫ই নভেম্বর টার্কিশ রিপাবলিক অফ নর্দার্ন সাইপ্রাস (টিআরএনসি) গঠিত হয়। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এর অস্তিত্ব স্বীকার না করলেও কেবল আঙ্কারাই দেশ হিসেবে তাদের স্বীকৃতি দিয়েছে। এ অঞ্চলটির ৯৯% অধিবাসী মুসলিম এব্ং সরকারী ভাষা তুর্কি।

অন্যদিকে, সাইপ্রাস দ্বীপপুঞ্জের দক্ষিণাঞ্চলের দুই-তৃতীয়াংশেই গ্রীক ভাষাভাষী মানুষের বসবাস। এ অঞ্চলটিকে নিয়ে গঠিত হয়েছে রিপাবলিক অব সাইপ্রাস – যেটি ২০০৪ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্যভুক্ত হয়। এ অঞ্চলটির অধিবাসীদের ৭৮% খৃষ্টান, ২০% মুসলিম এবং ২% অন্যান্য।

এরপরই সৈকত এলাকা ভারোশার ভোলবদল হয়। একদা যে সমুদ্রসৈকত ছিল বড়লোক ও বিখ্যাত লোকেদের অন্যতম পছন্দের জায়গা, তা ভুতুড়ে শহরে পরিণত হয়। বড় বড় বিলাসবহুল রিসোর্ট ও হোটেল এখন ভেঙে পড়েছে। ৮ই অক্টোবর তুরস্কের সেনা ভারোশাকে আংশিকভাবে খুলে দেয়। এ সিদ্ধান্ত নিয়েও আন্তর্জাতিক মহলের সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে।

সম্প্রতি সমুদ্রে তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান নিয়ে গ্রীস ও সাইপ্রাসের সঙ্গে তুরস্কের দ্বন্দ্ব শুরু হয়। তুরস্ক পূর্ব ভূমধ্যসাগরে তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানী জাহাজ পাঠায়। এ পরিস্থিতিতে ইইউ জানিয়েছে, বেআইনিভাবে তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান করায় আগামী মাসে তুরস্কের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হতে পারে। তীব্র এ উত্তেজনার মাঝেই উত্তর সাইপ্রাস সফরে যান রিসেপ তাইয়্যেব এরদোয়ান। এ সফরে বিরোধপূর্ণ ভরোসা এবং দু দ্বীপকে বিভক্তকারী জাতিসংঘের বাফার জোনও পরিদর্শন করেন তিনি। এ সময়ে তিনি দাবি করেন, কোনো ধরনের কারণ ছাড়াই ঐ অঞ্চলে উসকানি তৈরি করছে রিপাবলিক অব সাইপ্রাস।

উল্লেখ্য, গত মাসে উত্তর সাইপ্রাসের নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন এরদোয়ান সমর্থিত এরসিন তাতার। তুর্কি জাতীয়তাবাদী এ নেতা নির্বাচিত হওয়ায় দু সাইপ্রাসের পুনরেকত্রীকরণ আরো দূরে সরে গেছে বলে মনে করছেন অনেকেই। সবশেষ দু সাইপ্রাসের পুনরেকত্রীকরণ নিয়ে আলোচনা ব্যর্থ হয়ে যায় ২০১৭ সালে। জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় ঐ আলোচনা শুরু হলেও শেষ পর্যন্ত তা কোনো ফল বয়ে আনতে পারেনি। সূত্র: আল-জাজিরা, ডেইলি সাবাহ ও ডয়চে ভেলে।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে