১০ হাজার বিলিয়ন ডলার দিলেও হিজাব ছাড়বেন না মুসলিম মডেলিং নায়িকা হালিমা আদেন।

0

Our Times News

সম্প্রতি মার্কিন মুসলিম মডেলিং নাইকা হালিমা আদেন মডেলিংয়ের জগৎ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি মডেলিং জগতের বিভিন্ন কাজকে ইসলামী শরীয়াহ দৃষ্টিতে কুরুচিপূর্ণ অর্থাৎ সাংঘর্ষিক হওয়ার কারনে এমন সিদ্ধান্ত নেন।

এ প্রসঙ্গে নিউইয়র্ক টাইমসকে হালিমা আদেন বলেন, ধর্মীয় বিধি নিষেধের উপর গুরুত্বারোপ করে মডেলিং ছেড়ে দিচ্ছি। এতদিন আমি যে কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম তা আমার ধর্মীয় মনোভবের সাথে সংগতিপূর্ণ নয়।

হালিমা আরোও বলেন, শালীনতা শুধুমাত্র নির্দিষ্ট কোনো ধর্ম বা সংস্কৃতির জন্য নয়, এটি প্রাচীনতম ফ্যাশনও বটে। করোনাকালীন দীর্ঘ সময়ে লম্বা সুযোগ পেয়েছি নিজেকে নিয়ে ভাববার জন্য, একজন মুসলীম নারী হিসেবে অনেক কিছু ভেবে দেখেছি। বর্তমান সমাজে হিজাব পরিধান করে চলাফেরা করা সত্যিই খুব কঠিন কাজ।

তিনি একজন কৃষ্ণাঙ্গ মুসলীম নারী,ইন্ড্রাস্টিতে সফল হলেও বিভিন্ন চাপের মুখে পড়তে হয় তাকে। তাছাড়া মডেলিং ফটোশুটের সময়েও নিজেকে নিয়ে চরম অস্বস্তিবোধও করেন তিনি।

তিনি ধর্মের গুরুত্ব বুঝাতে গিয়ে বলেছেন, আমাকে ১০ হাজার বিলিয়ন ডলার (বাংলাদেশী টাকায় ৮৪ হাজার ৭৯২ কোটি ৮৮ লাখ টাকা) দেওয়া হলেও হিজাবের ব্যাপারে আমি আপোস করবো না। হিজাব নিয়ে কোনোপ্রকার ছাড় দেওয়া আমার পক্ষে কোন ভাবেই সম্ভব না।

কেনিয়ার একটি শরনার্থী শিবিরে হালিমা আদেনের জন্ম, সোমালিউয়ায়ান বাবা মায়ের সন্তান তিনি। মাত্র ৬ বছর বয়সেই তিনি চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে, এবং ১৮ বছর বয়সে তিনি মিস মিনেসোটা ইউএসএ অংশ নেন। এবং এই প্রতিযোগিতা থেকে আন্তর্জাতিক মডেলিং এজেন্সি (আইএমজির) নজরে পড়েন।

এই ধরনের কোনো প্রতিযোগিতায় প্রথম হিজাব পরিহীতা নারী হালিমা আদেন। পরবর্তী তিনি বিভিন্ন ফ্যাশন শো’তে শালীন পোষাকের জন্য পরিচিত মুখ হিসেবে প্রকাশ পান।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে