রিফাত হত্যা মামলার মূল আসামী মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ।

0

Our Times News

রগুনা জেলার আলোচিত সেই রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। এবং প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির মধ্যে ৪ জন আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে।

আজ বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আসাদুজ্জামানের আদালতে এই রায় ঘোষণা করা হয়।

এই হত্যা মামলায় যারা ফাঁসির আদেশ পেয়েছেন, তারা হলেন হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি,
রিফাত ফরাজি, আল কাইয়ূম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, মুহাম্মাদ হাসান,ও রেজওয়ান আলী খানওরফে টিকটক হৃদয়,

এদিকে আদালত প্রাঙ্গণে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বলেন, এই মামলা শুধু বরগুনাই নয় সারা বাংলাদেশেই আলোচিত এই মামলা। তিনি বলেন এই রায়ে আমরা অবশ্যই সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছি। গত বছরের ২৬ জুন যে হত্যাকাণ্ডটি হয়েছে তার শুরু থেকেই আমরা বলে আসছি এই হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড ছিল রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিক মিন্নি। এবং এই হত্যাকাণ্ডের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত ছিল ফাঁসির রায় হওয়া ৬ জনের । এবং আদালত এই ছয়জনকেই মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে। আর বাকি চারজনকে যে খালাস দিয়েছেন এই নিয়ে আমাদের কোন বক্তব্য নেই।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আরো বলেন এই মামলার ৭৬ সাক্ষীর সকলেই মিন্নিকেই দোষী করেছে। তারা জানিয়েছেন এই মিন্নির ষড়যন্ত্রের কারণেই রিফাতকে হত্যা করা হয়েছে। মিন্নি নয়নের সাথে বিয়ে গোপন করে রিফাতক শরিফ কে বিয়ে করেছিল। আইনে বলা আছে একজন নারী একটি বিবাহ বলবৎ থাকা অবস্থায় অন্য কোন পুরুষকে বিবাহ করতে পারে না।

এই রায়ে আদালত যাদেরকে খালাস দিয়েছেন। তারা হলেন, মুহাম্মাদ মুসা, মুহাম্মাদ সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন, ও রাফিউল ইসলাম রাব্বী।

গত বছরের ২৬ জুন সকাল সোয়া ১০টার সময় বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এর পরে ওইদিনই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকালেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে