সাংবাদিক রোজিনার ওপর নির্যাতন ও গ্ৰেফতারের ঘটনায় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করলেন মির্জা ফখরুল!

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের ওপর নির্যাতনের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সচিবের পদত্যাগ দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ মঙ্গলবার (১৮ মে) ঠাকুরগাঁওয়ে কালিবাড়িস্থ নিজ
বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বিএনপি মহাসচিব বলেন,রোজিনা ইসলামের অপরাধ হচ্ছে সে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরি করে করোনাকালীন স্বাস্থ্য বিভাগের দুর্নীতি ও অনিয়ম তুলে ধরেছে। এজন্যই তাঁকে ৫ ঘণ্টা আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করে এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটানো হয়েছে। আমরা এ ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ,তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানাচ্ছি। একইসঙ্গে এই ঘটনায় রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তাঁর মুক্তি এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সচিবের পদত্যাগ দাবি করছি।

ওই সময়ে মির্জা ফখরুল আরো বলেন, গণতন্ত্রের মূল কথাই হচ্ছে ভিন্নমত প্রকাশের স্বাধীনতা, আর এটাই এ ফ্যাসিবাদী সরকার ক্রমাগত লঙ্ঘন করেই চলেছে। এরপর তিনি সাগর-রুনি হত্যা মামলার কোনো বিচার না হওয়া, ফটো সাংবাদিক শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলাসহ বিভিন্ন সাংবাদিকদের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে বলেন, এসব সরকারের পরিকল্পিত কাজ, যাতে কেউ জাতির সামনে সরকারের অন্যায় ও দুর্নীতি তুলে ধরতে ভয় পায়। সবখানেই এ সরকার মানুষের মাঝে ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করে এভাবে দেশে একটা ফ্যাসিবাদ কায়েম করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

সাংবাদিক সাগর রুনি হত্যার প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, রুনি আমার চাচাতো বোন। সরকার সাগর-রুনির হত্যাকারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের কথা বললেও আজও তাদের গ্ৰেফতারের কোন হদিস আমরা পাইনি। এ সরকারের বড় বড় কর্তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন তৈরি করার কারণেই তাদের হত্যা করা হয়েছে। এ সরকারের আমলে সাংবাদিকরা নজিরবিহীন হেনস্তার শিকার হয়েছে। সাংবাদিকরা সরকারের ‌এমপি, মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করলেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে সংবাদকর্মীদেরকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করা হয়।

বেগম জিয়ার চিকিৎসার ব্যাপারে মির্জা ফখরুল বলেন, চিকিৎসকরা বেগম জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নিতে বললেও এ সরকার তাকে যেতে দিচ্ছে না। কারণ খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের পক্ষের একজন লড়াকু সৈনিক। এরপর মির্জা ফখরুল সাংবাদিকসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে নিজের অধিকার রক্ষায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি তৈমুর রহমান, পৌর বিএনপির সভাপতি আব্দুল হামিদ, ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল্লাহ মাসুদসহ আরো অনেক নেতা কর্মী।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে