আজ দেশের কিংবদন্তি ফুটবলার মুমেন মুন্নার ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী!

0

আওয়ার টাইমস্ নিউজ।
আজ শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি ) বাংলাদেশের ফুটবলের সোনালী যুগের কিংবদন্তি ফুটবলার এবং দেশের সর্বকালের সেরা ফুটবলার মোনেম মুন্নার ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০০৫ সালের এইদিনে দেশের ফুটবলের কোটি কোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান , দেশের জনপ্রিয় এই কিংবদন্তি ফুটবলার।

১৯৮১ সালে পাইওনিয়ার লীগ দিয়ে ফুটবলে অভিষেক মোনেম মুন্নার। আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে পেশাদার ফুটবলে উত্থান। প্রথম দুই মৌসুম মুক্তিযোদ্ধায়, এরপর এক মৌসুম ব্রাদার্স ইউনিয়নে খেলেন।

১৯৮৬ সালে সিউল এশিয়ান গেমসে প্রথমবার জাতীয় দলের জার্সি গায়ে জড়িয়েছিলেন। এরপর দু’একটি ম্যাচ বাদ দিলে টানা ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত জাতীয় দলে খেলেছেন এই ডিফেন্ডার।

১৯৮৭ সালে তিনি যোগ দেন ঢাকা আবাহনীতে। সেখানেই গড়ে তোলেন নিজের ফুটবল ক্যারিয়ার। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত আবাহনীর সঙ্গেই জড়িয়ে ছিলেন।

১৯৯১ মৌসুমের দলবদলে মুন্না আবাহনীতে খেলেছিলেন সর্বোচ্চ ২০ লাখ টাকা পারিশ্রমিকে। সে সময় প্রভাবশালী ম্যাগাজিন বিচিত্রার কাভারও হয়েছিলেন এই তারকা।

১৯৯০ সালে বেইজিং এশিয়ান গেমসে মুন্না প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পান। তার নেতৃত্বেই ১৯৯৫ সালে মিয়ানমার থেকে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জিতে ঘরে ফেরে লাল-সবুজরা। বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসে যা প্রথম সাফল্য।

২০০৩ সালের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবল কাপে ভারতকে হারিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ দল। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম কানায় কানায় ভরিয়ে তোলা দর্শকেরা সাক্ষী হয়েছিলেন এক সোনালি স্মৃতির। মতিউর মুন্নার এক ‘সোনালি গোল’ শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে বাংলাদেশকে এনে দিয়েছিল ২-১ গোলের এক ঐতিহাসিক জয়।

১৯৯৯ সালের রমজান মাসে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর নিয়ে যাওয়া হয় মুন্নাকে। পরে সিঙ্গাপুরে তার কিডনির গুরুতর সমস্যা ধরা পড়ে। এরপর ২০০০ সালের মার্চ মাসে বাঙ্গালোরে মুন্নার বোন শামসুন নাহার আইভীর কিডনি তার দেহে প্রতিস্থাপন করা হয়, ২০০৫ সালের ২৬ জানুয়ারি গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। এরপর ২০০৫ সালের ১২ ফেব্রুয়ারির আজকের এই দিনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যান না ফেরার দেশে! অসময় বাংলার এই কিংবদন্তি ফুটবলারের মৃত্যুর খবরে শোকের ছায়া নেমে আসে বাংলার পুরো ফুটবল অঙ্গনে।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে