লো-স্কোরিং ম্যাচে নাটকীয় জয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের!

0

স্টাফ রিপোর্টার: আমিনুল ইসলাম।

ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা এটা নতুন করে বলার কিছু নেই, নিত্যদিন নাটক জন্ম দেওয়াই ক্রিকেটের সাফল্য! পাঞ্জাব বনাম হায়দরাবাদের ম্যাচ শেষে এটা বলার বাকি রাখে না।
দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে রাত ৮ টায় মুখোমুখি হয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব বনাম সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ।
ক্রিকেটপ্রেমী লাখো দর্শক উপভোগ করেছে ক্রিকেটের অভাবনীয় গল্প।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ধীরেসুস্থে শুরু করেছিল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। দশম ওভার যখন চলে, ১ উইকেটে রান ছিল ৬৬। সেখান থেকে ২২ রানের মধ্যে আর ৪টি উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে লোকেশ রাহুলের দল।

অধিনায়ক রাহুল আর ক্রিস গেইল রান পেলেও টি-টোয়েন্টির সঙ্গে মানানসই ইনিংস খেলতে পারেননি। রাহুল ২৭ বলে ২ চার আর ১ ছক্কায় করেন ২৭, গেইলও ২০ রান করেন ২০ বলে, ২ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায়।

ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (১৩ বলে ১২), দীপক হুদা খেলেছেন (২ বলে ০)। ফলে ৮৮ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারায় পাঞ্জাব। সেখান থেকে দলকে একটু একটু করে যা এগিয়েছেন নিকোলাস পুরান। ২৮ বলে শেষ পর্যন্ত ৩২ রানে অপরাজিত থাকেন পাঞ্জাবের এই ব্যাটসম্যান, যে ইনিংসে ছিল মাত্র ২টি বাউন্ডারির মার। ফলে ২০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ১২৬ রান স্কোরবোর্ডে তুলতে সক্ষম হয় পাঞ্জাব।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন সন্দ্বীপ শর্মা, জেসন হোল্ডার আর রশিদ খান।

নাটকের দ্বিতীয় পর্বটা ছিলো অত্যন্ত রোমাঞ্চকর, ১২৭ রানের সহজ লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে নেমে বেশ ফুরফুরে মেজাজে খেলেছেন দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার – জনি বেয়ারস্ট্রো। পাওয়ারপ্লেতে কোনো উইকেট না হারিয়ে শুরুটা রঙ্গিন করেছিলো হায়দরাবাদ।

৬.২ ওভারে দলীয় ৫৬ রানের মাথায় প্রথম উইকেটের পতন ঘটে হায়দরাবাদের। ২০ বলে ব্যাক্তিগত ৩৫ রান করে সাজঘরে ফিরে যান ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার।
ঠিক পরের ওভারে মুরুগান আশ্বিনের বলে বোল্ড হয়ে আউট হন জনি বেয়ারস্ট্রো।

৬৬ রানের মাথায় আব্দুল সামাদের উইকেটের পর রানের চাকা অচল হয়ে পড়ে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের।

দলীয় ১০০ রানের মাথায় মানিশ পান্ডের উইকেট, ক্রমানুসারে ১০০ থেকে ১১৪ রানের মধ্যে বাকি ৭ উইকেট হারায় হায়দরাবাদ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর ;
টসঃ হায়দ্রাবাদ (ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্তে)
কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবঃ ১২৬/৭(২০)
নিকোলাস পুরানঃ ৩২(২৮)*
লুকেশ রাহুলঃ ২৭(২৭)
ক্রিস গেইলঃ ২০(২০)

বোলার;
সন্দীপ শর্মাঃ ৪-২৯-৪-২
জেসন হোল্ডারঃ ৪-২৭-০-২
রশিদ খানঃ ৪-১৪-০-২

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদঃ ১১৪/১০(১৯.৫)
ডেভিড ওয়ার্নারঃ ৩৫(২০
বিজয় শঙ্করঃ ২৬(২৭)
জনি বেয়ারস্ট্রোঃ ১৯(২০)

বোলার;
ক্রিস জর্ডানঃ ৪-১৭-০-৩
আর্শদিপ সিংঃ ৩.৫-২৩-০-৩
ফলাফলঃ কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ১২ রানে জয়ী।
ম্যাচসেরাঃ ক্রিস জর্ডান(৩)

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে