১৬ জুন, ২০২৪, ৯ জিলহজ, ১৪৪৫
সর্বশেষ
আজ থেকে শুরু হলো পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা
হজ করতে আসা আফ্রিকার যুবকের যেই ছবি কাঁদিয়েছে বহু মানুষকে
বিমান বিধ্বস্ত হয়ে পূর্ব আফ্রিকার দেশ মালাবির ভাইস প্রেসিডেন্ট’সহ সব আরোহীর মর্মান্তিক মৃত্যু!
আফ্রিকার পক্ষ থেকে ম্যাচ সেরা পুরস্কার পাওয়া অস্ট্রেলিয়ান আম্পায়ারের জ্ঞানহীন ভুল সিদ্ধান্তের কারণেই ম্যাচ হেরেছে বাংলাদেশ মন্তব্য ক্রিকেট বিশ্লেষকদের
গাজায় নি’কৃ’ষ্ট জাতি ই’স’রাইলি হা’য়ে’নাদের হামলায় ২৮৩ জন ফি’লিস্তিনি নিহত! এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা ৩৭ হাজার ছাড়াল
ভারতের বিপক্ষে আমিরদের বিধ্বংসী বোলিংয়ের পরও হাস্যকর ব্যাটিংয়ে লজ্জাজনক ভাবে হারল পাকিস্তান
গাজার শরণার্থী শিবিরে নি’কৃ’ষ্ট ই’সরায়েলি হায়েনাদের হামলায় কমপক্ষে ২১০ জন ফিলিস্তিনি নিহত
বেনজীর-আজিজদের অপকর্মের কারণেই মার্কিন নিষেধাজ্ঞা বললেন রানা দাশগুপ্ত
তাওহীদ হৃদয় ও বুড়ো মাহমুদুল্লার বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে চিরশত্রু শ্রীলঙ্কাকে বিধ্বস্ত করলো বাংলাদেশ দল
জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গিয়েছে” ১৬ জুন সৌদি আরবে পবিত্র ঈদুল আজহা

আফগানিস্তানে ত্বালেবান শাসনে আফিম (মাদক) চাষ ৯৫% কমেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ

আওয়ার টাইমস নিউজ।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আফগানিস্তানই ছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড় আফিম উৎপাদক ও সরবরাহী দেশ – যেখান থেকেই ইউরোপ ও এশিয়ায় হেরোইন যেত। তখন ত্বালেবানরা আফিম চাষ নিয়ন্ত্রণ করতো। ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের মাঝে আফিম বাণিজ্য থেকে আনুমানিক ৪০০ মিলিয়ন ডলার আয় করেছিলো ত্বালেবান – যা দিয়ে তারা অস্ত্র কিনত। ত্বালেবান পুনরায় ক্ষমতাসীন হলে, এই মাদক চাষের উদ্যোগকে নির্মূলের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। সে মতে, ক্ষমতা পুনরুদ্ধরের পর, ২০২২ সালের এপ্রিলে সেদেশে আফিম চাষের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে ত্বালেবান সরকার। এখন জাতিসংঘ জানিয়েছে, ত্বালেবান শাসনে আফগানিস্তানে আফিমের উৎপাদন ৯৫% কমেছে।

গেল রোববার জাতিসংঘের মাদক ও অপরাধ সংক্রান্ত কার্যালয়ের (ইউএনওডিসি) প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছরের তুলনায় আফিম চাষ ৯৫%’র বেশী কম হয়েছে। গত বছর ২ লাখ ৩৩ হাজার হেক্টর জমিতে আফিম চাষ হয়েছিল। এবার তা হয়েছে ১০ হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে। গত বছর আফিম উৎপাদন হয়েছিল ৬ হাজার ২০০ টন। এবার তা কমে দাঁড়িয়েছে ৩৩৩ টনে। এ বছর যে চাষ হয়েছে, তাতে ২৪ থেকে ৩৮ টন হেরোইন রপ্তানি করা যাবে। ২০২২ সালে তা রপ্তানি করা হয়েছিল ৩৫০ থেকে ৫৮০ টন। গত বছর পপি চাষ করে কৃষকদের রোজগার হয়েছিল ১৩৬ কোটি ডলার। এ বছর তা কমে দাঁড়িয়েছে ১১ কোটি ডলারে। যারা আফিম চাষ করতেন, তারা যাতে অস্ত্র পাচার বা অন্য কোনো বেআইনি কাজ না করে, সেদিকে নজর রাখা উচিত।

ইউএনওডিসির নির্বাহী পরিচালক ঘাডা ওয়ালী বলেছেন: আজ আফগানিস্তানের মানুষের জন্যে মানবিক ত্রাণ খুবই জরুরী। ধান ও তুলা চাষের জন্যে প্রচুর পানি দরকার হয়। দেশটিতে পরপর তিন বছর খরা হয়েছে। তাই, মানুষকে বাঁচাতে সেখানে বিনিয়োগ দরকার। তাহলেই আফগানদের আফিম চাষ থেকে সরিয়ে আনা যাবে।

কিন্তু ত্বালেবান ক্ষমতায় আসার পর সেখানে আন্তর্জাতিক ত্রাণ প্রায় যাচ্ছে না বললেই হয়। নারীদের অধিকার নিয়ে চিন্তিত দেশগুলো আফগানিস্তানকে ত্রাণ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

বর্তমানে ৪০% আফগান খাবারের তীব্র অনিশ্চয়তায় ভুগছেন। টিকে থাকতে মানবিক সহায়তার ওপর নির্ভর করছেন দেশটির প্রায় অর্ধেক জনগণ।

উল্লেখ্য, আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে ব্যাপকভাবে জন্মায় পপি ফুল। তবে সব পপি ফুল থেকে আফিম বা মাদক দ্রব্য তৈরি হয় না। পপি ফুলের নিরীহ অনেক প্রজাতি রয়েছে – যা বাগানে শোভা পায়। ফল পাকলে, ব্লেড দিয়ে ফলের গায়ে গভীর করে আঁচড় দেয়া হয়। ফলে ৫ থেকে ৬ ঘণ্টা পর সেই ফল থেকে কষ বের হয় – যা চাষীরা সংগ্রহ করেন। আর এটাই হলো – আফিমের কাঁচামাল। এরপর রাসায়নিক নানান প্রক্রিয়ায় অন্যান্য উপজাত জৈব রাসায়নিক দ্রব্য বানানো হয়। এটা থেকে হিরোইন ছাড়াও মরফিন পাওয়া যায় – যা ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ফলের বীজগুলো তরকারী হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বীজের নাম পোস্তদানা। ফলের খোসার নাম পোস্তঢেড়ী। সূত্র: আল-জাজিরা, ডয়চে ভেলে ও অন্যান্য

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

ফেসবুক পেজ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

Archive Calendar
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত