১৮ মে, ২০২৪, ৯ জিলকদ, ১৪৪৫
সর্বশেষ
ই’হুদী ই’স’রাইল কর্তৃক বিধ্বস্ত ফি’লিস্তিনে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী মোতায়েনের আহ্বান আরব লীগের
যারা সামান্য একবেলা ভাত খেতে পারতো না, তারা এখন চারবেলা খায়ঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
সব দিক থেকেই প্রচণ্ড চাপের মধ্যে আছে বাংলাদেশঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
মেয়েরা চাকরিতে যাওয়ার পর থেকেই বিবাহবিচ্ছেদ বেড়েছে বললেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক সাইদ আনোয়ার
মদিনার উদ্দেশ্যে রওনা হওয়া বিমানে ভয়াবহ আগুন!
আমরা চেয়েছিলাম বাংলাদেশে একটি অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোকঃ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু
একশত কেজিরও বেশী ওজনের আজম খানের বিধ্বংসী ব্যাটিং দেখে হতবাক মুহাম্মদ রিজোয়ান
দ’খলদার ই’হুদী ই’সরাইলের নৃশংস বর্বরতায় এখন পর্যন্ত প্রান হারিয়েছে ৩৫ হাজারের বেশী ফি’লিস্তিনি
জা’বালিয়ায় রা’তভর ই’হুদী ই’স’রায়েলের বোমা হামলায় কমপক্ষে ২০ জন ফি’লিস্তিনি নিহত
মালয়েশিয়ায় ২৭ বাংলাদেশিসহ কমপক্ষে ৪০ জন অভিবাসী আটক

তাবলীগ জামাতের দুই গ্রুপ নিয়ে এশিয়া মহাদেশের শীর্ষ আলেম আল্লামা আরশাদ মাদানীর বক্তব্য ভাইরাল!

আওয়ার টাইমস নিউজ।

নিউজ ডেস্ক: দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশে তাবলীগ জামাতের দুই গ্রুপ” অর্থাৎ (মাওলানা সা’দ গ্ৰুপ এবং মাওলানা জুবায়ের গ্ৰুপের মধ্যে চলমান কোন্দল দিন দিন ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। এবং এখনও পর্যন্ত তা চলমানই রয়েছে, এক গ্রুপ অন্য গ্রুপ কে বিভিন্ন বিষয়ে দোষারোপ করছে, পাশাপাশি এক গ্রুপ আরেক গ্রুপকে কাফের বা গুমরাহ ফতুয়া দিয়ে আসছিল।

অবশেষে উভয় গ্ৰুপের ভয়াবহ কোন্দল নিরশনের জন্য সুস্পষ্ট বক্তব্য দিয়েছে এশিয়া মহাদেশের শীর্ষ পর্যায়ের আলেম ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দের প্রখ্যাত আলেম মাওলানা আরশাদ মাদানি।

তিনি বলেছেন, মাওলানা সা’দ সাহেব তার এলোমেলো বক্তব্যের জন্য রুজু করার পর দারুল উলুম দেওবন্দের মাস’আলা খতম হয়ে গিয়েছে।

দারুল উলুম দেওবন্দের মাওলানা আরশাদ মাদানী আরো বলেছেন, তাবলীগের দুই পক্ষই আমাদের, উভয়ই হক। কারো সাথেই আমাদের সম্পর্ক খারপ করবো না।

আজ ৬ই ফেব্রুয়ারী ২০২৪ রোজ মঙ্গলবার বসুন্ধরা ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারের খতমে বুখারী অনুষ্ঠানে আমীরুল হিন্দ দেওবন্দের মাওলানা আরশাদ মাদানী এই বক্তব্য রাখেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, “যদি কোন ব্যাক্তি কাউকে গোমরাহ বলে, লানত দেয়, তাহলে আল্লাহর নবী বলেন, ঐ ব্যক্তি প্রকৃতপক্ষে গোমরাহ্! না হলে কিংবা লা’নতের উপযুক্ত না হলে লা’নতদাতার উপরেই তা পতিত হয়। তিনি আরো বলেন, দেওবন্দে প্রায় ফতোয়া চাওয়া হয়, তাবলীগের দুপক্ষের মধ্যে কারা গোমরাহ, কারা কাফের? আমরা বলে দেই, কেউ কাফের না এমনকি গোমরাও না। সবাই নামাজী, মুমিন, গুনাহ থেকে পরহেজগার। অতএব, কেউ কাউকে কাফের বা ফাসেক বলে নিজের ঈমান ও আখেরাতকে বরবাদ করো না। যারা এতদিন এসব করেছো তারা তওবা করো। উভয়পক্ষের সাথে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। তাবলীগের দুই পক্ষই আমাদের কাছে আসে, কথা বলে, আমরা শুনি। আমাদের দাওয়াত করে, আমরা যাই, তাদেরও আমরা দাওয়াত করি। আমাদের মধ্যে কোন ইখতেলাফ নেই।

মাওলানা মাদানী আরো বলেন, দুই পক্ষ একই মেহনত করে। উভয়ের জামাতই আল্লাহর রাস্তায় বের হয়। তাই আমরা বলি, কোন একপক্ষকে মহব্বত করার কারণে অপরপক্ষকে কাফের বলা, গোমরা বলা ভয়াবহ গুনাহ। তারা কাফের হবে না বরং তোমার ঈমানই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দারুল উলুম দেওবন্দের কাছে ফতোয়া চাওয়া হয়েছে। আমরা ফতোয়া দিয়ে দিয়েছি। এরপর তিনি যখন রুজু করে নিয়েছেন তখন সব মাসআলা খতম হয়ে গিয়েছে। কেউ দুনিয়াবী স্বার্থে আখেরাতকে বরবাদ না করি। তাই অত্যন্ত আফসোসের সাথে এই পয়গাম দিতে চাই, তাবলীগের বর্তমান পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে একপক্ষকে কাফের বলা, খুন-খারাবী করা ধ্বংস ছাড়া আর কোন পরিণতি বয়ে আনবে না।

বক্তব্যের শেষে তিনি বলেন, দুই পক্ষই হক। আবারো বলছি, উভয়পক্ষই সঠিক। এমন ইখতেলাফ দারুল উলূম দেওবন্দেও হয়েছে। ফলে আরেকটি দেওবন্দ সৃষ্টি হয়েছে। এমনভাবে অনেক মাদরাসায় মতবিরোধের কারণে নতুন নতুন মাদরাসা সৃষ্টি হয়েছে। এমতাবস্থায় একটিকে সঠিক ধরে নিয়ে বাকীগুলোকে বিভ্রান্ত ও গোমরাহ বলা নিছক মূর্খতা ছাড়া আর কিছু না।

উক্ত বক্তব্য রাখার সময় সহস্রাধিক উলামায়ে কেরাম উপস্থিত ছিলেন বলে জানিয়েছেন সেখানকার উপস্থিত ওলামায়ে কেরাম। অনুবাদক: সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

ফেসবুক পেজ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

Archive Calendar
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত